হিন্দুদের অধিকারের পক্ষে লন্ডনের রাজপথের বিপ্লবী কণ্ঠস্বর "পুষ্পিতা গুপ্তা"



প্রকাশ দেব,

ব্রিটিশ লেবার পার্টির হয়ে কাউন্সিলর পদে লড়ছেন বাংলাদেশে হিন্দু তথা সংখ্যালঘু নির্যাতনের বিরুদ্ধে, হিন্দুদের অধিকার আদায়ের পক্ষে  লন্ডনের রাজপথের লড়াকু কণ্ঠস্বর, বিশিষ্ট মানবাধিকার কর্মী, মৌলভীবাজারের সন্তান  পুষ্পিতা গুপ্তা দিদিভাই। ব্রিটেনের লেবার পার্টি লন্ডনের রেডব্রিজ কাউন্সিলর সেভেন কিংস ওয়ার্ডের পুন: নির্বাচনে মনোনয়ন দিয়েছে ব্রিটিশ বাংলাদেশি পুষ্পিতা গুপ্তাকে। আগামী ৬ই মে এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

পুষ্পিতা গুপ্তের জন্ম মৌলভীবাজার জেলার রাজ নগর উপজেলার করিম্বপুর চা বাগানে ৷ তিনি দু’কন্যার কন্যার জননী ও স্বামী জ্ঞান দাস প্রকৌশলী হিসেবে কাজ করছেন একটি আন্তর্জাতিক কোম্পানিতে।

বাংলাদেশের বাইরে তৃতীয় বাংলাদেশ খ্যাত ব্রিটেনে বসবাসরত ব্রিটিশ বাংলাদেশিদের অবস্থান সুদৃঢ়।বাংলাদেশি মৌলভীবাজার বংশ দূত ব্রিটিশ সংসদ সদস্য, মেয়র সহ দেশটির নানা কাউন্সিলে প্রতিনিধিত্ব করছেন বাংলাদেশিরা। দেশটিতে অনেকেই কাউন্সিলর হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন এর আগে। লেবার পার্টি লন্ডনের রেডব্রিজ কাউন্সিলর সেভেন কিংস ওয়ার্ডের পুন: নির্বাচনে মনোনয়ন দিয়েছে ব্রিটিশ বাংলাদেশি পুষ্পিতা গুপ্তকে।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তি উদযাপনের দিনে লেবার পার্টির কাউন্সিলর পদে পুষ্পিতাকে মনোনয়ন দিয়ে বাড়তি আনন্দের উপলক্ষ তৈরী করেছে।

রাজনীতি, সামাজিক ও মানবিক নানা কাজে এগিয়ে রয়েছেন দেশটিতে বসবাসরত বাংলাদেশিরা। মনোনয়ন পেয়ে রেডব্রিজের ওয়ার্ড সেভেন কিংস এর কাউন্সিলর হিসেবে নির্বাচনে জয়লাভের ব্যাপারে আশা প্রকাশ করেছেন পুষ্পিতা। প্রাক্তন কাউন্সিলর স্টুয়ার্ট বেলউডের প্রতি সম্মান ও শ্রদ্ধা জানিয়ে তিনি বলেন, অত্যন্ত পরিশ্রমী কাউন্সিলর ছিলেন বেলউড। তার প্রতি অনেক সম্মান ও শ্রদ্ধা জানাই।

পুষ্পিতা গুপ্ত সেক্যুলার বাংলাদেশ মুভমেন্ট, যুক্তরাজ্য শাখার সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি বহুমুখী কর্মকাণ্ডে নিয়োজিত। নিজ পেশার পাশাপাশি নিয়মিত সমাজসেবা ও মানবিক কাজ করে যাচ্ছেন পুষ্পিতা। বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের জন্য কাজ করেন তিনি। সেখানকার একটি স্কুলের ডেপুটি ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। যেখানে কাজ করতে গিয়ে পুষ্পিতা সমাজে শিশুরা সমাজ ও পরিবারে যেসব চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হয় তা বেশ দারুণভাবে উপলব্ধি করছেন। এই কাজে প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতার মাধ্যমে তিনি বুঝতে সক্ষম হয়েছেন যে, কীভাবে পরামর্শের মাধ্যমে পরিবারে পিতা-মাতাদের অনেক সমস্যা সমাধান সম্ভব।

সমাজের একজন সদস্য হিসেবে, সেভেন কিংসে পরিবর্তনের ধারা ফিরিয়ে আনার বিষয়ে আশা পোষণ করে তিনি বলেন, আমি বাংলা, হিন্দি, উর্দু ভাষা আয়ত্ত করেছি। ফলে নানান ভাষাভাষীর মানুষের সাথে যোগাযোগ রাখতে সক্ষম হবো।

প্রথম দিকের করোনা মহামারীর লকডাউনে পুষ্পিতা কিংস জর্জ হাসপাতালের কর্মীদের জন্য খাবার প্রস্তুত ও সরবরাহ করেছেন। সম্প্রতি তিনি রেডব্রিজ কাউন্সিলের দাতব্য সংস্থার সঙ্গে যুক্ত হয়ে গৃহহীন ও অভাবী লোকদের জন্য সপ্তাহে ১০০ গরম খাবার নিজ হাতে প্রস্তুত ও বিতরণ করেছেন। তিনি মনে করেন, গৃহীনতার অবসান ঘটাতে হবে এবং এটি সমাধানে নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করতে হবে।

পাশাপাশি ইলফোর্ড নর্থ শহরের হেইনল্ট ব্রাঞ্চ এ্যন্ড চেয়ার অব হেইনল্ট পুলিশ ওয়ার্ডে পুষ্পিতা গুপ্তা একজন নারী কর্মকর্তা হিসেবেও কাজ করছেন, যা থেকে তিনি স্থানীয়দের সাথে যোগাযোগ রক্ষা ও তাদের প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করার গুরুত্ব উপলব্ধি করছেন।

একজন সমাজকর্মী হিসেবে বিভিন্ন সময়ে তিনি সমাজের সম্প্রদায় এবং প্রতিনিধিদের মাঝে সমন্বয় সাধনসহ অপরাধমূলক ও সমাজবিরোধী বিভিন্ন কর্মকাণ্ড নির্মুলের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। পাশাপাশি পূর্ব লন্ডন এবং রেডব্রিজের প্রতিটি নির্বাচনেই তিনি লেবার পার্টির হয়ে কাজ করেছেন।

স্থানীয় মহিলা কাউন্সিলর, নেতাকর্মী এবং স্থানীয়ভাবে পার্টিতে সক্রিয় ভূমিকা গ্রহণে নারীদের উৎসাহিত করার জন্য তিনটি সফল আন্তর্জাতিক নারী দিবস আয়োজন করেছেন পুষ্পিতা গুপ্ত। সেই সঙ্গে নারী অগ্রগতিতে তহবিল সংগ্রহে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন তিনি। পুষ্পিতা গুপ্ত অন্যদের সাহায্য করতে ভালোবাসেন। তিনি ধারাবাহিকভাবে মানুষের জন্য কাজ করে যেতে চান। তার অর্জিত দক্ষতা, অভিজ্ঞতা ও জ্ঞান সেভেন কিংসের লোকদের জীবনমানের উন্নতি ভূমিকা রাখবে বলেই প্রত্যাশা করেন অত্র এলাকার বাসিন্দারা।

Post a comment

0 Comments